হোজ্জার বিড়ালশাবক আর আরাফাতের রাজাকার শাবক 

হোজ্জার বিড়ালশাবক আর আরাফাতের রাজাকার শাবক

একবার নাসিরুদ্দীন হোজ্জা এক কেজি গোশত এনে স্ত্রীকে রাঁধতে দিয়ে বাড়ি থেকে বেশ দূরে একটা নদী থেকে গোসল সেরে আসেন । ফুরফুরে মেজাজে মজা করে খাবেন আজ। খেতে বসে গোশতের ডিশ না দেখে প্রশ্ন করেন , গোশত কোথায় ?

স্ত্রী সামনের বিড়াল শাবককে দেখিয়ে বলেন , এই বিড়ালে সব গোশত খেয়ে ফেলেছে । তখন নাসিরুদ্দীন হোজ্জা ঐ বিড়ালটিকে নিক্তিতে বসিয়ে মাপেন । মেপে দেখেন ঐ বিড়াল শাবকের ওজনও সর্ব সাকুল্যে এক কেজি । তখন স্ত্রীকে প্রশ্ন করেন , এটাই যদি পুরো বিড়াল শাবক হয় তবে এক কেজি গোশত কোথায় গেল ? আর এটা যদি এক কেজি গোশত হয় , তবে বিড়াল শাবকটি গেলো কোথায় ?
হোজ্জার স্ত্রী হোজ্জাকে যেমন বেকুব ভেবেছিল তার চেয়েও বড় বেকুব ভেবেছে মোহাম্মদ এ. আরাফাতগণ এদেশের জনগণকে ।

একজন টিভি অভিনেত্রীর স্বামী হিসাবে লাইম লাইটে আসেন বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোহাম্মদ এ. আরাফাত । এরপর অনলাইন এবং অফলাইনে বিশেষ কিছিমে রাজাকার শাবক তাড়িয়ে তিনি ইতোমধ্যে গুণীজনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন । তাঁর মতের সাথে না মিললেই যে কাউকে রাজাকার শাবক ডেকে নিজের পেইজে ব্লক মেরে দেন । এই ব্লক মারাকে আবার তিনি নিজের মতই সশব্দে সেলিব্রেট করেন । একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকের এই মানের বুদ্ধিবৃত্তিক উচ্চতা অনেককেই তাক লাগিয়ে দিয়েছে । তার একটা বিশেষ পারদর্শিতা -যে কোনো বিষয়েই বক বক করে যেতে পারেন ।

সরকারি চাকুরিতে কোটা সংস্কারের জন্যে গড়ে ওঠা আন্দোলনেও তিনি রাজাকার শাবকদের বাছাই করতে লেগে গেছেন । নাসিরুদ্দীন হোজ্জার স্ত্রীর বিড়াল শাবক এবং গোশতের মতই আরাফাত সাহেব সাধারণ ছাত্র ছাত্রী আর কথিত রাজাকার শাবকদের মধ্যে একটি পার্থক্য টানতে চেয়েছেন । আরাফাত সাহেবরা যতই কাঁশি দিয়ে অনাকাঙ্খিত
কোনো শব্দ ঢাকতে চাচ্ছেন ততই তা স্পষ্ট হয়ে পড়ছে ।

দেশের মানুষের কাছে প্রকৃত ঘটনা দিবালোকের মতই স্পষ্ট হয়ে গেছে । ডিজিটাল এই জমানায় প্রতিটা ধাপের ভিডিও রেকর্ডিং অনলাইনে ছড়িয়ে আছে । এশারা দেশের সাধারণ ছাত্র ছাত্রীকে কেমন আতংকগ্রস্ত করে তুলেছিল , তার অডিও রেকর্ডিং ও তা তুলে ধরেছে । আরাফাত সাহেবদের অনেক লেফ রাইট সত্ত্বেও জনগণ তাদের ছয়টি ইন্দ্রিয় ব্যবহার করে আসল ঘটনাটি বুঝে নিয়েছে ।

দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেলেই সাধারণ ছাত্র ছাত্রীরা প্রতিরোধ সৃষ্টি করেছিল । সেই প্রতিরোধের সম্মুখেই এশাদের ত্রাসের রাজত্ব খসে পড়ে । পরিস্থিতি সামাল দিতেই তখন এশাকে ছাত্রলীগ, হল এবং বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করা হয় । এখন ঠান্ডা হলে এই আরাফাত সাহেবদের দিয়ে ড্যামেজ কন্ট্রোলের ব্যবস্থা করা হচ্ছে ।
নৈতিকভাবে দুর্বল অবস্থানে থাকা কারো পক্ষে সঙ্গী সাথীরা দাঁড়ানোর সাহস করে না । সেটা সম্ভব হলে প্রচন্ড দাপুটে এশা নিজের হলেই এভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবার কথা ছিল না । নিজের হলে বা সাম্রাজ্যে তিনি কতটুকু দাপুটে ছিলেন , তা তার ভাইরাল হওয়া অডিও রেকর্ড থেকেই আঁচ করা গেছে । নারী হয়েও বাল, নাটক চুদাও প্রমুখ স্ল্যাং শব্দগুলো অত্যন্ত সাবলীল ভাবে উচ্চারণ করে গেছেন এই লীগ নেত্রী ।

এখন শাক দিয়ে মাছ না ঢেকে এশার এই ঘটনা থেকে শিক্ষা নিলেই উত্তম হতো । এই সব বদরুল এবং লেডি বদরুলদের দিকে জনগণের ক্ষোভ যেকোনো মূহুর্তে ধপ করে জ্বলে উঠতে পারে- এশার ঘটনা চোখে আঙুল দিয়ে তাই দেখিয়ে দিয়েছে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *