বুদ্ধি প্রতিবন্ধি তরুণীর বাড়ন্ত শরীর এবং হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদ

Minar Rashid

মেয়েটি এক সময় সাপ্তাহিক বিচিত্রায় চিঠিপত্র কলামে লেখালেখি করত। মানুষের বিশেষ মনোযোগ আকর্ষণের জন্যে এক সময়ে বলতে থাকে, ছেলেরা দাঁড়িয়ে প্রশ্রাব করতে পারলে মেয়েরা পারবে না কেন ? চৌদ্দ পনের বছরের ভাইটি শরীরের উপরিভাগ উদোম করে ঘুরতে পারে , কিন্তু তার বয়েস আরও কম থাকতেই মা তাকে এসব নিয়ে খালি খালি বকাঝকা করেন কেন ?

এই ধরনের প্রশ্ন শুনে মেয়েটিকে বুদ্ধি প্রতিবন্ধি হিসাবে ডিক্লেয়ার না করে দেশের বুদ্ধিজীবীরা তাকে দেশের শ্রেষ্ঠ বুদ্ধিমতি মেয়ে হিসাবে ঘোষণা করল । পাশের দেশটি তাকে এই ধরণের আরো কিছু কথা বলার জন্যে বিরাট বড় এক পুরস্কার দিয়ে বসল । তার মেধা ও মনন সম্পর্কে সম্যক অবগত দেশবাসী তাতে প্রমাদ গুণল । কারণ এখন মুখ খুললে বিপদ বাড়ে । অন্যদিকে মুখ বন্ধ রাখলে বাড়ে আপদ ।

এক সময় দেশের যৌগবাদী পুরুষেরা তাকে মৌলবাদী পুরুষদের বিরুদ্ধে লেলিয়ে দেয় । তবে গোপনে গোপনে অনেকে তার আকর্ষণীয় শরীরটির পানে আকর্ষিত হয় । ঘরে এদের সবার স্ত্রী থাকা সত্ত্বেও এটাকে তারা বিরাট এক মওকা হিসাবে গণ্য করে ।
একদিন শুভ সকালে সেই মেয়েটি যৌগবাদী পুরুষদের কাজের রগরগে বর্ণনা প্রকাশ করে দিল । কে , কীভাবে , কোথায় তার পানে কতটুকু এডভান্স হয়েছিলেন – কোন হোটেলে , কোন বাগানে , কোন হ্রদের পাশে , তার রগরগে বর্ণনা দেয়া শুরু করল । দেশ খ্যাত এক খেলারাম যিনি মেয়েটিকে তার নিজের মেয়ে হিসাবে সোহাগ করতেন , দেখা গেলো তিনিও ফেসে গেছেন । এই বাবাজির বিশেষ আগ্রহে হোটেলের এক রুমে অবস্থান করে গান্ধীর মত নফসের এক পরীক্ষায় অবতীর্ণ হন । সেই টেষ্টে এই খেলারাম বাবা যে ফেল করতে যাচ্ছিলেন , সেই বিষয়টি মেয়েটি প্রথমেই আঁচ করে ফেলে । সেই মধুর বর্ণনাটিও অত্যন্ত খোলামেলাভাবে লিখে জানায় ।
অগত্যা কয়েক কোটি টাকার মান হানির মামলা দিয়ে নিজের ইজ্জত বাঁচাতে হয়েছিল এই খেলারাম বাবাকে ।

এই ঘরানার বুদ্ধিজীবীরা কোন কোন খদ্দেরের জন্যে আজ বাংলার পুরো জমিনটিকেই বুদ্ধি প্রতিবন্ধি তরুণীর বাড়ন্ত শরীরের মত বানিয়ে ফেলেছে । এই খদ্দেরদের মধ্যে অন্যতম হলো হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদ । এই বুদ্ধিজীবীরা নিজ বাপ দাদার ধর্মের কোন অনুষ্ঠানে কখনও যান না – নিজেদের ধর্মনিরপেক্ষতা নষ্ট হয়ে যাওয়ার ভয়ে । কিন্তু এরা অত্যন্ত গর্ব ভরে হাজির হন হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের যে কোন সমাবেশে । এদের হিপোক্রেসি বা শঠতা সম্পর্কে এই কথাটি প্রয়াত কথাশিল্পী হুমায়ূন আহমেদও উল্লেখ করে গেছেন । এই সুশীল বুদ্ধিজীবীদের প্রশ্রয়েই এই উগ্রবাদী সংগঠনটি এতটুকু বাড়া বেড়েছে।

দেশের সকল মানুষকে কম বুদ্ধি সম্পন্ন জ্ঞান করে বাড়ন্ত এই শরীরটিকে যাচ্ছে তাই ব্যবহার করেও খায়েশ মিটছে না এই ঐক্য পরিষদের । তারা এখন আরও দাবি করছে ।

হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের যুক্তরাষ্ট্র শাখা বাংলাদেশে গরু জবাই নিষিদ্ধ করার দাবি জানিয়েছে ।গত শুক্রবার নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসের একটি রেস্তোরায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই দাবিটি তোলা হয়েছে ।

অবাক করার বিষয় হলো এই কথিত পরিষদটিতে তিনটি ধর্মের প্রতিনিধিত্ব থাকলেও একটি ধর্মের উগ্র গোষ্ঠীর দাবিটি হুবহু উত্থাপন করা হয়েছে । অনেক লিবারেল হিন্দু যেখানে এই ধরনের দাবিকে অযৌক্তিক , হাস্যকর ও অন্যায্য গণ্য করেন- সেখানে এই পরিষদে থাকা বৌদ্ধ ও খ্রীষ্টানরাও একই দাবি তুলেছেন । কাজেই এদের এজেন্ডা ধর্মীয় নয় – স্রেফ রাজনৈতিক । বৌদ্ধরা শুধু একটি বিশেষ জীবকে হত্যা নয় , সকল জীব হত্যাকেই মহা পাপ বলে জ্ঞান করেন । তারপরেও বাস্তবতার চাপে বৌদ্ধ প্রধান দেশগুলিতে আমিষের জন্যে প্রতিদিন কোটি কোটি জীব হত্যা করা হয় । তারা জীবহত্যা প্রতিরোধ থেকে গোহত্যা প্রতিরোধে নেমে এসেছেন । যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত ও তুলনামূলক আলোকিত খ্রীষ্টানরা গরু জবাই নিষিদ্ধের পক্ষে দাঁড়িয়েছেন , এটা অনেক কৌতুহল ও বিস্ময়ের উদ্রেক করে । পৃথিবীতে গো খাদকের সংখ্যা মুসলিম বিশ্ব থেকে খ্রীষ্টান বিশ্বে অনেক অনেক বেশি ।

ফ্রিজে গরুর গোশত রাখা আছে এই গুজব ছড়িয়ে জনৈক আকলাখকে পিটিয়ে মারা হলেও ইন্ডিয়া হলো সবচেয়ে বড় বিফ রফতানী কারক দেশ । সেই সব বিফ রফতানিকারক কোম্পানী গুলির মালিকরা আবার শত ভাগ হিন্দু । নিজেরা গোমাতাকে ভক্ষণ না করলেও অন্য দেশে ঠেলে দিতে বা একই মতলবে পাহাড় থেকে ফেলে দিতে কোন আপত্তি নেই । মনে হচ্ছে এই সব উগ্রবাদীদের গো -প্রেম চাঙ্গা দিয়ে উঠে শুধু মুসলিমদেরকে বিফ খেতে দেখলে ।

আপনি নিজে গরুর গোশ্ত না খেতে পারেন । তবে অন্য কারো গরু খাওয়াকে গায়ের জোরে বা আইনের জোরে নিষিদ্ধ করতে পারেন না । নিজের ধর্ম বিশ্বাস বা ফুড হেভিটকে জোর করে অন্যের ওপর চাপিয়ে দিতে পারেন না । বিশেষ করে শতকরা তিরানব্বই ভাগ নন-হিন্দুর দেশে এই ধরনের আবদার সবাইকে হতবাক করেছে ।
এখন অপেক্ষা করতে হবে
এই খদ্দেররা সামনে আর কোন দাবিটি নিয়ে এগিয়ে আসেন ।

 

1 COMMENT

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here